Connect with us

Facts

ধর্ষকদের কোন দেশে কি ধরনের সাজা দেওয়া হয় জানলে শিউরে উঠবেন

প্রতিটি দেশের, প্রতিটি সমাজের মধ্যে অন্যতম এক বড় ও ঘৃণ্য অপরাধ হলো ধর্ষণ। আর ধর্ষণের বিরুদ্ধে শাস্তির বিধানও তেমনই হওয়া উচিত। কোথাও কোথাও এই বিষয়টিকে এক সামাজিক ব্যাধি হিসাবেও মনে করা হয়। কিন্তু অনেক সময় এসবের ফলে নিগৃহীতার জীবনে নেমে আসে অনেক ধরনের বাধা বিপত্তি।

বর্তমান সময়ে দাঁড়িয়েও অনেক সমাজই নির্যাতিতাদের-কেই দোষী বলে মনে করে থাকেন। তবে বিশ্বের এমন অনেক দেশ আছে যেখানে ধর্ষণের সাজা হয় কঠিন থেকে কঠিনতর। এবার চলুন দেখে নেওয়া যাক – ধর্ষকদের কোন দেশে কি ধরনের সাজা দেয় 

Victim blaming obvious no-no. What about victim protection? - Opinion - The  Jakarta Post

১) চিনঃ এই দেশটিতে ধর্ষণের একটি মাত্রই সাজা আর সেটি হলো মৃত্যুদন্ড। কোন ব্যক্তি ধর্ষণে প্রমাণিত হলে তাকে অন্য কোনো সাজা না দিয়ে সরাসরি মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়। আর খুব দ্রুততার সাথেই এই কার্য সম্পন্ন করা হয়।

২) ইরানঃ এই দেশে ধর্ষণের সাজা হয় ফাঁসি নয়তো একদম সোজাসুজি গুলি। আর এই দেশ মনে করে যে, এই কাজে আসল দোষী হলো ধর্ষক, ধর্ষিতা নয়।

৩) আফগানিস্তানঃ আফগানিস্তানের কথা উঠলেই মনে পরে তালিবানী শাসন। কিন্তু আফগানিস্থানে ধর্ষণের হার খুবই কম। আর সেখানের ধর্ষণের সাজাও অত্যন্ত কঠিন। কারণ সেখানে ধর্ষককে সরাসরি মাথায় গুলি করে হত্যা করা হয়।

৪) উত্তর কোরিয়াঃ এই দেশেও ধর্ষণের একটিমাত্র সাজা আর তা হলো মৃত্যুদন্ড। এ দেশে ধর্ষণের অভিযোগ সত্য বলে প্রমাণিত হলে ধর্ষককে গুলি করে মারা হয়।

How to Overcome a Fear of Shooting Guns: Top 6 Concerns and Simple Solutions

৫) ফ্রান্সঃ এই দেশে নির্যাতিতার শারীরিক অবস্থা বুঝে ধর্ষকের সাজা ঠিক করা হয়। তবে অপরাধীকে গ্রেফতারের পর তার অপরাধ প্রমাণিত হলে তাকে কমপক্ষে ১৫ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়। আর অপরাধ যদি গুরুতর হয় তাহলে তা বেড়ে ৩০ বছর পর্যন্তও হতে পারে।

৬) সৌদি আরবঃ এই দেশে ধর্ষণের সাজা মারাত্মক। এখানে ধর্ষককে সবার সামনে পিটিয়ে হত্যা করা হয়। আর এই কারনেই এই দেশে ধর্ষণের সংখ্যা অনেক কম।

Continue Reading
Click to comment

Trending ..

To Top