Connect with us

ক্রিকেট

৪ ভারতীয় খেলোয়াড় যারা আইসিসির তিনটি শিরোপা জিতেছেন

ক্রিকেট খেলায় আইসিসি টুর্নামেন্টকে সবচেয়ে বড় আসর হিসেবে ধরা হয়। এর মধ্যে রয়েছে আইসিসি বিশ্বকাপ, আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি এবং আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। এই টুর্নামেন্টের একটিও জিততে পারা যে কোনো দলের জন্য গর্বের বিষয়। ভারতীয় দলের কথা বললে, তিনটি আইসিসি টুর্নামেন্টের জয়ের স্বাদ পেয়েছেন এমনই কিছু খেলোয়াড়, তো চলুন দেখে নেওয়া যাক:

৪) হরভজন সিং:

প্রাক্তন ভারতীয় অফস্পিনার হরভজন সিং আইসিসির তিনটি ট্রফি জেতার স্বাদ পেয়েছেন। ২০০২ সালে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে সৌরভ গাঙ্গুলীর নেতৃত্বে ভারতীয় দল যৌথভাবে জয়ী হয়েছিল। এই টুর্নামেন্টে তিনি ৫ ম্যাচে ৬ উইকেট নিয়েছিলেন। এরপর ২০০৭ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ৬ ম্যাচে ৭ উইকেট, ২০১১ বিশ্বকাপে ৯ ম্যাচে ৯ উইকেট নিয়েছিলেন। যদিও এই তিনটি টুর্ণামেন্টে হরভজনের পারফরম্যান্স খুব একটা ভালো ছিল না, কিন্তু তিনি প্রতিপক্ষ দলকে যথেষ্ট চাপে রেখেছিলেন। 

৩) বীরেন্দ্র শেহবাগ:

বীরেন্দ্র শেহবাগ ২০০২ সালের চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক ছিলেন। পুরো টুর্ণামেন্টে দুর্দান্ত ব্যাটিং করে ৫ ম্যাচে ২৭১ রান করেন। এরপর ২০০৭ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ভারতের বিশ্বকাপ জয়ের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন। চোটের কারণে ফাইনাল খেলতে না পারলেও সেমিফাইনাল পর্যন্ত ভারতীয় দলকে সব সময় ভালো সূচনা দিয়েছেন। এরপর ২০১১ বিশ্বকাপে তিনি শচীন টেন্ডুলকারের সাথে অসাধারণ ওপেনিংয়ের ভূমিকায় পারফর্ম করেছেন।

২) যুবরাজ সিং:

যুবরাজ সিং ভারতীয় দলের সবচেয়ে বড় ম্যাচ জয়ী খেলোয়াড়। ২০০২ চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে তেমন প্রতিভা দেখানোর সুযোগ পাননি। পাঁচ ম্যাচ খেলে মাত্র দুটি ব্যাট করার সুযোগ পান। তিনি সেমিফাইনালে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে ৬২ রান করেন ও বল হাতে একটি উইকেট নেন। এর বছর পাঁচেক পর টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ‘ডু ওর ডাই’ ম্যাচে স্টুয়ার্ট ব্রডের ওভারে ছয় ছক্কা হাঁকিয়ে ইতিহাস তৈরি করেছিলেন। এমনকি সেই ইনিংসে মাত্র ১২ বলে হাফসেঞ্চুরি করেন। এরপর ২০১১ বিশ্বকাপে অলরাউন্ড পারফরম্যান্স দিয়ে ভারতকে বিশ্বকাপ জেতানোর ক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় অবদান রেখেছিলেন। যুবরাজ ৯ ম্যাচে ৩৬২ রান ও ১৫ উইকেট নিয়ে ওই টুর্নামেন্টের সেরা খেলোয়াড় হন।

১) মহেন্দ্র সিং ধোনি:

ক্রিকেট ইতিহাসের মহেন্দ্র সিং ধোনিকে অন্যতম সেরা অধিনায়ক হিসেবে বিবেচনা করা হয়। ২০০৭ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ধোনি তার বুদ্ধিমত্তা এবং নেতৃত্তের দক্ষতা দিয়ে ভারতকে চ্যাম্পিয়ন করেছিলেন। এরপর ২০১১ বিশ্বকাপ ফাইনালেও গম্ভীরের সাথে জুটি বেঁধে ৯১ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলে দলকে শিরোপা জেতান। এই টুর্নামেন্টে ধোনি ৯ ম্যাচে ২৪১ রান করেছিলেন। এরপর ২০১৩ চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির ফাইনালেও ধোনি তার বুদ্ধিমত্তার পরিচয় দিয়েছিলেন। ম্যাচের শেষ দিকে ইশান্ত শর্মার হাতে বল তুলে দেন, যিনি দুটি গুরুত্বপূর্ণ উইকেট নিয়ে খেলার মোড় ঘুরিয়ে দিয়েছিলেন এবং ভারত চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি জিতে নেয়। এর মাধ্যমে ধোনি প্রথম ও একমাত্র অধিনায়ক হিসেবে আইসিসির তিনটি শিরোপা জেতেন।

Continue Reading
To Top