Connect with us

News

সারাবিশ্ব যখন জর্জরিত করোনাতে, চীনে উৎপত্তি হয়েছে আরো এক নতুন ভাইরাস

এই মুহূর্তে বিশ্বের ১৯৬ টি দেশে করোনার সংক্রমণে জর্জরিত। বৈজ্ঞানিকরা এখনো পর্যন্ত সঠিক প্রতিষেধকের আবিষ্কার করতে পারেনি। তবুও দিন-রাত কঠোর পরিশ্রম করে চলেছেন কেবলমাত্র এই মহামারীর হাত থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য। ঠিক এমন পরিস্থিতিতে চীনে করোনার মতই উৎপত্তি হয়েছে আবারও এক নতুন ভাইরাস, মারা গিয়েছে এক ব্যক্তি। এর ফলে মুহুর্তেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে।

Image result for coronavirus

চীনা সরকারী সংবাদপত্র গ্লোবাল টাইমস এই ঘটনার কথা প্রকাশের পরে সোশ্যাল মিডিয়ায় তোলপাড় শুরু হয়েছে। জানা গিয়েছে, চীনের ইউনান প্রদেশের এক ব্যক্তি হ্যান্টা নামক ভাইরাসে সংক্রমিত হয়ে মারা গেছেন। এই খবর তখনই প্রকাশিত হয় যখন ওই ব্যক্তি যে বাসে করে ফিরছিলেন তাতে আরও ৩২ জন ব্যক্তি ছিলেন এবং তাদের প্রত্যেককেরই শারীরিক পরীক্ষা নেওয়া হয়। তবে তাদের শরীরে কোন ভাইরাসের রিপোর্ট পাওয়া যায়নি। 

বিপুল সংখ্যক লোক টুইট করছেন এবং আশঙ্কা করছেন যে এটি করোনা ভাইরাসের মতো মহামারীতে পরিণত হতে পারে। সকলে দাবি করেছেন যে যদি চীনের মানুষ জীবিত প্রাণী খাওয়া বন্ধ না করে তবে এই ঘটনা অব্যাহত থাকবে। মূলত ইঁদুর ও কাঠবেড়ালি খাওয়ার ফলেই মানুষের শরীরে এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে। 

Image result for Hantavirus

হ্যান্টা ভাইরাস কী? বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, এই ভাইরাস করোনার মত এত ভয়াবহ নয়। এটি বাতাসের দ্বারা সংক্রামিত হয় না। এটি ইঁদুর বা কাঠবিড়ালি দ্বারা মানুষের সংস্পর্শে ছড়িয়ে পড়ে। চীনের স্বাস্থ্য দপ্তর থেকে বলা হয়েছে, ঘরের মধ্যে ইঁদুর থাকলেও এই ভাইরাস দ্বারা মানুষ সংক্রমিত হতে পারে।

যদিও এই ভাইরাসটি এক ব্যক্তি থেকে আরেক ব্যক্তির মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে না তবে যদি কোন ব্যক্তি ইঁদুরের মল, মূত্র ইত্যাদির সংস্পর্শে আসে তাহলে এই ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বাড়ে। এ রোগে আক্রান্ত হলে মৃত্যুঝুঁকি থাকে ৩৮%। এই ভাইরাসে আক্রান্ত হলে প্রাথমিক লক্ষণগুলির মধ্যে জ্বর, মাথা ব্যথা, শরীরে ব্যথা, পেটে ব্যথা, বমিভাব, ডায়রিয়া ইত্যাদি দেখা দেবে। যথাসময়ে চিকিৎসার ব্যবস্থা না নেয়া হলে অস্বভাবিক শ্বাসকষ্ট শুরু হবে এমনকি মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে বলে জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

অনেকেই চীনের নাগরিকদের খাদ্যাভাসে বিরুদ্ধে তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন। অবিলম্বে গোটা বিশ্বের একজোট হয়ে চিনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া উচিত। জন্তু-জানোয়ার খাওয়ার জন্যই এই ধরনের মারাত্মক ভাইরাসের আবির্ভাব ঘটছে বলে একাংশ মানুষ দাবি করেছে।

Continue Reading
Click to comment

Trending ..

To Top