Connect with us

হোমিওপ্যাথিক ওষুধ খাওয়ার কয়েকটি সাবধানতা

Health

হোমিওপ্যাথিক ওষুধ খাওয়ার কয়েকটি সাবধানতা

শরীর থাকলে রোগ থাকবে এই কথা সকলেই জানেন, তাই অনেকেই হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসার উপরে প্রচুর ভরসা রাখেন। কিন্তু এই চিকিৎসা করানোর সময় এমন কিছু ভুল কাজ করে থাকেন বা যে নিয়মগুলি আছে না মানলে কখনোই সেই রোগ ব্যাধি থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে না। তাহলে চলুন জেনে নেওয়া যাক সেই সকল নিয়মগুলি কি কি –

১) আপনি হোমিওপ্যাথিক ওষুধ যখন খাবেন ঠিক খেয়াল রাখবেন তার ১০ মিনিট আগে বা পরে অন্য কোন খাবার মুখে দেবেন না। কারণ এতে কার্যকারিতা কম হয়।

২) আপনি যদি এই মুহূর্তে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা করাচ্ছেন অথচ অন্যদিকে নেশা জাতীয় কিছু গ্রহণ করছেন – এমন কখনোই করবেন না। কারণ এই সকল দ্রব্যের মধ্যে এমন কিছু পদার্থ রয়েছে যা হোমিওপ্যাথিক ওষুধ এর কার্যকারিতার পথে বাধা হয়ে দাঁড়ায়।

৩) হোমিওপ্যাথিক ওষুধ খাওয়ার সময় অবশ্যই মনে রাখবেন কখনোই ওষুধগুলি হাতের তালুর মধ্যে নেবেন না। কারণ এই জাতীয় ওষুধের মধ্যে এক প্রকার স্পিরিট থাকে যা সাথে সাথে উড়ে যায়। এইজন্য শিশির মুখে করে কিংবা কাগজের মধ্যে নিয়ে খাবেন।

৪) হোমিওপ্যাথিক ওষুধ খাওয়ার আগে ভালো করে মুখ ধুয়ে নেবেন ও কুলকুচি করবেন।

৫) এই জাতীয় ওষুধ যখন খাবেন সেই সময় কোন টক জাতীয় খাবারের সাথে সম্পর্ক রাখবেন না কারণ এতে কার্যকারিতার খর্ব হয়।

৬) অ্যালোপ্যাথি ওষুধ খাওয়ার সময় কিংবা আয়ুর্বেদিক ওষুধের সাথে হোমিওপ্যাথিক ওষুধ কখনোই খাবে না কারণ এতে এর কার্যকারিতা ততটা সঠিকভাবে হয় না।

৭) এজাতীয় চিকিৎসা করার সময় কখনোই পানীয় জাতীয় খাবার অর্থাৎ চা এবং কফিকে যত পারবেন এগিয়ে চলার চেষ্টা করবেন।

৮) একই রোগ হলেও অন্য কোনো রোগীর হোমিওপ্যাথিক ওষুধ গ্রহণ করবেন না কারণ মানুষ অনুযায়ী এই ওষুধের ধরন পাল্টে যায়। তাতে আপনার উপকার হওয়ার বদলে বরং ক্ষতি হবে।

৯) সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো আপনি যে জায়গায় এই ওষুধের শিশি গুলি রাখবেন সেখানে যেন কোন রকম সরাসরি রোদ না আসে।

১০) এই ওষুধের ঢাকনা কখনোই খুলে রাখবেন না। এই শিশি গুলি সবসময় ঠাণ্ডা শীতল এবং অন্ধকারের মত জায়গায় রেখে দিন।

Continue Reading
Click to comment

Trending ..

To Top